ইউটিউবে সফল হওয়ার ৫টি দরকারি টিপস


ইউটিউবে সফল হওয়ার টিপস

ইউটিউবে সফল হওয়ার ৫টি দরকারি টিপস

 

এখন আমি আপনাদের মাঝে বাংলাদেশের বড় ইউটিউবারদের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে ইউটিউবে সফল হওয়ার ৫টি দরকারি টিপস শেয়ার করব। ইউটিউবে সফল হওয়ার দরকারি টিপসগুলো ব্যবহার করে আপনি খুব সহজে একজন সফল ইউটিউবার হতে পারবেন। বর্তমান সময়ে একজন সফল ইউটিউবার হওয়া আর একটা ভালো মানের সরকারি চাকরি পাওয়া অনেকটা একই সমান ব্যাপার। আপনি যদি একজন সফল ইউটিউবার হতে চান তাহলে আজকের এই আর্টিকেলটি আপনার অনেক বেশি কাজে লাগবে কারন নতুন নতুন অনেক কিছু জানতে ও শিখতে পারবে ইউটিউব সম্পর্কে। তাহলে চলুন বেশী সময় নষ্ট না করে শুরু করা।

 

বর্তমান সময়ে একজন সফল ইউটিউবার হওয়া অনেকটাই কঠিন ব্যাপার হয়ে গেছে কারণ প্রত্যেকটা বাংলার ঘরে ঘরে একটা করে ইউটিউবার আছে এই কারণে। পাশাপাশি বর্তমান সময়ে ইউটিউবে অনেক বেশি কম্পিটিশন হওয়ার কারণে ইউটিউবে সফল হওয়া অনেক কঠিন একটি ব্যাপার হয়ে যাচ্ছে। কিন্তু এখন আমি আপনাদের মাঝে বাংলাদেশের বড় ইউটিউবারদের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে ইউটিউবে সফল হওয়ার ৫টি দরকারি টিপস শেয়ার করব। টিপসগুলো নিয়মিত ব্যবহার করা মাধ্যমে আপনি খুব সহজে একজন সফল ইউটিউবার হতে পারবেন। অবশ্যই বিস্তারিত জানার জন্য সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি মনোযোগ দিয়ে পড়তে হবে।

 

আপনি যদি সবার আগে ইউটিউবে সফল হওয়ার গোপন টিপসগুলো জানতে চান তাহলে এখনি দেরি না করে নিচে থাকা ইউটিউব ভিডিওটি মনোযোগ দিয়ে সম্পূর্ণ দেখুন। কারণ নিচে থাকা ইউটিউব ভিডিওর ভিতরে বাংলাদেশের বড় ইউটিউবারদের ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে ইউটিউবে সফল হওয়ার ৫টি দরকারি টিপস শুধুমাত্র আপনাদের জন্য শেয়ার করা হয়েছে। আপনার কাছে যদি পর্যাপ্ত পরিমানে সময় থাকে তাহলে আপনি নিচে থাকা ভিডিওটি দেখতে পারেন অথবা সম্পূর্ণ আর্টিকেলটি আপনি মনোযোগ দিয়ে পড়তে পারে। তাহলে এখনি দেরি না করে নিচে থাকা ইউটিউব ভিডিওটি মনোযোগ দিয়ে সম্পূর্ণ দেখুন।

 

 

ইউটিউবে সফল হওয়ার ৫ টি দরকারি টিপস

 

প্রথম ইউটিউবে টিপস :- কখনো 3 থেকে 4 টা ইউটিউবে খারাপ ভিডিও আপলোড করবেন না এটা খুবই ভয়ঙ্কর একটা জিনিস। খেয়াল করেন আমাদের ইউটিউব চ্যানেলের সবগুলো ভিডিও কিন্তু একরকম হয় না। যেমন আমরা যখন ইউটিউবে পাঁচটায় ভিডিও আপলোড করি হয়তো তিনটা ভিডিও ভালো হয় কিন্তু দুইটা ভিডিও আবার খারাপ হয়। এই কারণেই এই বিষয়টি মাথায় রাখবেন একটানা কিন্তু তিন থেকে চারটা খারাপ ভিডিও আপলোড করা যাবে না। খারাপ ভিডিও বলতে আপনার ইউটিউব ভিডিও রেজুলেশন কে বোঝানো হচ্ছে না অথবা ভিডিও কে বুঝানো হচ্ছে না। আপনার ভিডিও ইউটিউবে কিরকম পারফমেন্স করলো এটাকে বুঝানো হচ্ছে। একটা ভিডিও যদি খারাপ পারফরম্যান্স করে ওই ক্যাটাগরি অথবা ঐ টাইপের ভিডিও আর কিছুদিনের ভিতর আপলোড করবেন না। যেই ক্যাটাগরি ভিডিওগুলি আপনার ইউটিউব চ্যানেলের সব থেকে বেশি মানুষ দেখতে পছন্দ করে ওই ক্যাটাগরির ভিডিওগুলো বেশি আপলোড করবে।

 

দ্বিতীয় ইউটিউবে টিপস :- আপনার ইউটিউব চ্যানেলে আপনি নিয়মিত অথবা ধারাবাহিকভাবেই ভিডিও আপলোড করতে হবে। আপনি যদি প্রতি সপ্তাহ দুইটা ভিডিও আপলোড করেন তাহলে নিয়মিত প্রতি সপ্তাহে দুইটা ভিডিও আপলোড করতে হবে। সব সময় চেষ্টা করবেন টাইমটা কে মেনটেন করে সঠিক সময়ে ভিডিও আপডেট করতে নিয়মিত। একটা বিষয় মাথায় রাখতে হবে নিয়মিত ভিডিও আপলোড করতে গিয়ে কিন্তু খারাপ ভিডিও আপলোড করা যাবে না কোনদিন এত ভালো ভালো ভিডিও শুধু আপলোড করতে হবে। তাহলে আপনি খুব সহজেই খুব দ্রুত একজন সফল ইউটিউবার হতে পারবেন।

 

তৃতীয় ইউটিউবে টিপস :- সবসময়ই একটা বিষয় মাথায় রাখতে হবে আপনার ইউটিউব ভিডিওর ওয়াচ টাইম যত বেশি হবে আপনার ভিডিওটি তত বেশি মানুষের কাছে ইউটিউব পৌছিয়ে দিবে। আপনি যদি 10 মিনিটের একটি ভিডিও বানান আর ওই ভিডিওটি বেশিরভাগ মানুষের যদি এক মিনিটের মতন দেখে তাহলে কিন্তু আআপনার ইউটিউব ভিডিওটাকে অত ভালো মনে করা হবেনা খারাপ ভিডিও হিসেবে ধরা হবে। সবসময় ভিডিওর ভিতরে সঠিক ইনফরমেশন শেয়ার করবেন ভিডিও বড় করার জন্য কখনোই কোন ভুল ইনফরমেশন শেয়ার করা যাবে না। সবসময় এভারেজ ভিডিওর ওয়াচ টাইম 50% মতন রাখার চেষ্টা করবেন তাহলে অনেক বেশি ভালো হবে। অবশ্যই নিচে থাকা ফেসবুক কমেন্ট এর মাধ্যমে ইউটিউবে সফল হওয়ার টিপসগুলো সম্পর্কে আপনি আপনার মূল্যবান মতামত আমাদেরকে জানাবেন।

 

চতুর্থ ইউটিউবে টিপস :- সব সময় ভিডিও ভাইরাল করার চেষ্টা করবেন না কারণ ভিডিও ভাইরাল হলেও অনেক বেশি লাভ আছে আবার অনেক বেশি ক্ষতি হচ্ছে। একটা অথবা দুইটা ভিডিও ভাইরাল হওয়ার কারণে ওই দুইটা ভিডিওতে কিন্তু অনেক বেশি অনেক বেশি ভিউ চলে আসবে। এটা বেশিরভাগ সময় ভালো আবার বেশিভাগ সময় খারাপ দেখা গেছে। ভাইরাল হওয়া ভিডিও মাধ্যমে যে অডিয়েন্স গুলো আপনি পেয়েছেন ওই অডিয়েন্স গুলো কোন টাইপের ভিডিও দেখতে একেবারেই পছন্দ করে না যেটা অনেক বাজে একটা ব্যাপার। এখন আমি আপনাদের মাঝে যেই ইউটিউবে সফল হওয়ার দরকারি টিপস গুলো শেয়ার করেছি এই টিপসগুলো কিন্তু আপনাকে নিয়মিত ব্যবহার করতে হবে। ইউটিউবে সবার আগে সফল হওয়ার জন্য বিষয়টি মাথায় রাখবেন।

আরো জানুন :- ভিডিও ভাইরাল করার সহজ নিয়ম

পঞ্চম ইউটিউবে টিপস :- আপনি যত ভালো ভিডিও বানান না কেন আপনি যদি ভাল টাইটেল ও ভালো থাম্বেল না ব্যবহার করেন তাহলে কিন্তু আপনার ভিডিও মানুষ একেবারে দেখবে না বলা যায়। সব সময় চেষ্টা করবেন ইউজার ফ্রেন্ডলি এসইও ফ্রেন্ডলি টাইটেল ব্যবহার করত পাশাপাশি মোটামুটি ভালো অথবা প্রফেশনাল মানের একটি থাম্মেল ব্যবহার করতে। একটা ইউটিউব ভিডিও বানাতে মোটামুটি আপনি যদি একদিন সময় দিতে পারেন তাহলে আমি মনে করি থাম্বেল বাড়ানোর জন্য মিনিমাম আপনাকে 2 থেকে 3 ঘন্টা সময় দেওয়া প্রয়োজন। কখনো ভুল মেটাডাটা টাইটেল ও থাম্বেল ব্যবহার করবেন না এটা অনেক বাজে একটা ব্যাপার। পঞ্চম টিপসটি আমি মনে করি সবথেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ একজন সফল ইউটিউবার হওয়ার জন্য।

 

ইউটিউবে সফল হওয়ার টিপসগুলো যদি নিয়মিত ফলো করতে পারেন তাহলে খুব সহজে আপনি একজন সফল ইউটিউবার হতে পারবেন। টিপসগুলো ব্যবহার করা এক থেকে দেড় মাসের ভিতরে আপনি রেজাল্ট পেয়ে যাবেন। এখনো যদি ইউটিউবে সফল হওয়ার টিপসগুলো নিয়ে আপনার মনে কোন প্রশ্ন থাকে অবশ্যই নিচে থাকা ফেসবুক কমেন্ট এর মাধ্যমে আপনি আপনার সমস্যার কথা আমাদেরকে জানাতে পারেন। আপনার মূল্যবান সময় নষ্ট করে আমাদের ওয়েবসাইটে আসার জন্য আপনাকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

 

অন্যদের সাথে শেয়ার করুন

© 2019-2022 BDyoutubecommunity.com