ইউটিউব কপিরাইট পলিসি কি || কপিরাইট পলিসি কিভাবে কাজ করে


ইউটিউব কপিরাইট পলিসি

ইউটিউব কপিরাইট পলিসি কি, কিভাবে কাজ করে

 

আসসালামুআলাইকুম বন্ধুরা আশা করি সবাই ভাল আছেন। আজকে আমরা বিস্তারিত আলোচনা করব ইউটিউব কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে। আমি মনে করি প্রত্যেকটা ইউটিউবারের ইউটিউব কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা থাকা প্রয়োজন। কপিরাইট স্ট্রাইক ও কপিরাইট ক্লেইমকে ছোট-বড় সব ধরনের ইউটিউবার ভয় পায়। এই কারণে প্রত্যেকটা ইউটিউবারের কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা রাখা প্রয়োজন। আপনি যদি কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে বিস্তারিত ধারণা পেতে চান তাহলে এই পোস্টটি সম্পূর্ণ মনোযোগ দিয়ে পড়ুন বিস্তারিত ধারণা পেয়ে যাবেন। তাহলে চলুন বেশি কথা না বলে শুরু করা যাক।

 

কপিরাইট স্ট্রাইক ও কপিরাইট ক্লেইম ইউটিউবারদের কাছে দুঃস্বপ্নের মত সে বড় ইউটিউবার হোক আর ছোট ইউটিউবার হোক প্রত্যেকে কপিরাইট স্ট্রাইক কে সমানভাবে ভয় পায়। আপনি যদি ইউটিউব কপিরাইট পলিসি অমান্য করেন তাহলে আপনাকে কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইম দেওয়া হয়। অনেক সময় দেখা যায় কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে ভালো ধারণা না থাকার কারণে ভুলবশত আমাদের প্রয়োজনীয় কাজের ক্ষেত্রে আমরা অন্যের কন্টেন আমাদের ভিডিওতে ব্যবহার করে থাকি। কিছুদিন পর দেখা যায় আমাদেরকে ভিডিওতে কপিরাইট স্ট্রাইক ও কপিরাইট ক্লেইম দেওয়া হয় কারণ আমরা ভুলবশত অন্যের ভিডিও ব্যবহার করে ফেলেছি আমাদের ভিডিওতে। এই কারণে আমি মনে করি সবাই কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকা প্রয়োজন।

 

ইউটিউব কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে বিস্তারিত জানার জন্য নিচের ভিডিওটি মনোযোগ দিয়ে সম্পূর্ণ দেখুন। তাহলে আপনি বিস্তারিত জানতে পারবেন কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে বিস্তারিত একটি ধারণা। আশা করি নিচের ভিডিওটি আপনার কাছে অনেক বেশি ভালো লাগবে। নিচের ভিডিওটি যদি আপনার কাছে ভালো লেগে থাকে তাহলে আপনার মূল্যবান মতামত নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাবেন। তাহলে দেরি না করে এখনি নিচের ভিডিওটি মনোযোগ দিয়ে সম্পূর্ণ দেখুন।

 

ইউটিউব কপিরাইট পলিসি কিভাবে কাজ করে বিস্তারিত টিউটরিয়াল

 

 

আশা করি উপায় ভিডিওটা দেখে ইউটিউব কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে বিস্তারিত একটা ধারণা পেয়েছেন। এখনই যদি আপনার কোন প্রশ্ন থাকে অবশ্যই আপনার প্রশ্ন নিচে কমেন্টে মাধ্যমে আমাদেরকে জানাবেন। আমরা আপনার প্রশ্নের উত্তর দেবো। সব সময় চেষ্টা করবেন অন্যান্য ইউটিউবারের অডিও ভিডিও ইমেজ কপি না করা। এর ফলে আপনি কপিরাইট অথবা কপিরাইট ক্লেইম থেকে অনেক দূরে থাকতে পারবে। নিচে আরও বিস্তারিত আলোচনার পাশাপাশি আরও একটি টিউটোরিয়াল ভিডিও আছে আপনি চাইলে দেখতে পারেন আশা করি আরো নতুন নতুন কিছু শিখতে পারবেন।

 

কপিরাইট স্ট্রাইক ও কপিরাইট ক্লেইম কি, কিভাবে কাজ করে

 

কপিরাইট স্ট্রাইক ও কপিরাইট ক্লেইম কি :- কপিরাইট স্ট্রাইক ও কপিরাইট ক্লেইম সাধারণত আপনি যদি অন্যের ভিডিও কপি করে নিজের ভিডিওতে ব্যবহার করেন তাহলে আপনাকে কপিরাইট স্ট্রাইক ও কপিরাইট ক্লেইম দেওয়া হবে। কপিরাইট স্ট্রাইক যদি আপনার চ্যানেলে ৩ মাসের মধ্যে পর পর ৩ বার আসে তাহলে আপনার চ্যানেলটি ইউটিউব এর পক্ষ থেকে বন্ধ করে দেওয়া হবে। আর এর মধ্যে যদি ২টা বা ১টা স্ট্রাইক উঠিয়ে নিতে পারেন তাহলে আপনার চ্যানেল টি ডিলিট হওয়ার হাত থেকে বেঁচে যাবেন। যে ব্যাক্তি আপনার বিরুদ্ধে কপিরাইট স্ট্রাইক করেছে তার ইমেইল এড্রেস আপনি পেয়ে যাবেন।

 

কপিরাইট স্ট্রাইক কি :- সহজ বাংলা ভাষায় কপিরাইট স্ট্রাইক হল এক ধরনের শাস্তি। আপনি যদি অন্যের ভিডিও বা অডিও অথবা ইসকিনশট কপি করে নিজের ভিডিওতে ব্যবহার করেন তাহলে আপনাকে কপিরাইট স্ট্রাইক দেওয়া হবে। কপিরাইট স্ট্রাইক থেকে বাঁচলে হলে সব সময় নিজের কন্ঠের ব্যবহার করুন।

 

কপিরাইট ক্লেইম কি :- সহজ বাংলা ভাষায় আপনি যদি অন্যের ভিডিও বা অডিও অথবা ইসকিনশট কপি করে নিজের ভিডিওতে ব্যবহার করেন তাহলে আপনাকে কপিরাইট ক্লেইম দেওয়া হবে। কপিরাইট ক্লেইম আপনার চ্যালেনের কোন প্রকার ক্ষতি করে না। কিন্তু আপনার যেই ভিডিওতে কপিরাইট ক্লেইম এসেছে ওই ভিডিওতে যে ইনকাম টা হবে ওই ইনকাম টা সম্পূর্ণ যে ইউটিউব চ্যানেল আপনাকে কপিরাইট ক্লেইম দিয়েছে ওই ইউটিউব চ্যানেলকে দেওয়া হবে। তা ছাড়া আর কোন সমস্যা হবে না।


Related Post :- SUB 4 SUB কি


কপিরাইট স্ট্রাইক ও কপিরাইট ক্লেইম দিবে কে :- অন্যের কনটেন্ট যদি আপনি কপি করেন যেমন :- ভিডিও বা অডিও অথবা ইসকিনশট তাহলেই আপনাকে কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইম দেওয়া হবে। যার ভিডিও বা অডিও অথবা ইসকিনশট কপি করেছেন ওই ব্যক্তি আপনাকে শুধু কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইম দিতে পারবেন। অন্য কেউ আপনাকে কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইম দিতে পারবে না।

 

ভুলবশত কপিরাইট :- আপনি যদি মনে করেন ভুলবশত আপনাকে কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইম দেয়া হয়েছে তাহলে আপনি ইউটিউব টিমের কাছে আবেদন করতে পারবেন। ইউটিউব টিম যদি মনে করে আপনি সত্য কথা বলছেন পাশাপাশি আপনার আবেদনটির সঠিক তাহলে ইউটিউব এর পক্ষ থেকে কপিরাইট স্ট্রাইক ও কপিরাইট ক্লেইম তুলে নেওয়া হবে।

 

কপিরাইট রিমুভ করার নিয়ম :- ইউটিউব কপিরাইট পলিসি আপনি যদি মনে করেন আপনি আসলেই ভিডিওটি কপি করেছেন তাহলে যে ব্যক্তি আপনাকে কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইম দিয়েছে ওই ব্যক্তির সাথে কথা বলে কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইম তুলে নেয়ার জন্য অনুরোধ করতে পারেন। আর কপিরাইট স্ট্রাইক থেকে বাঁচলে হলে নিজের কনটেন্ট ব্যবহার করুন। অথবা আপনি যদি মনে করেন আপনি ভিডিওটি কপি করে নিয়ে আপনাকে ভুলভাবে কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইমদেওয়া হয়েছে। তাহলে কপিরাইট ভিডিও অপশন এর সাথে অভিযোগ জানানোর অপশন আছে আপনি ইউটিউবকে অভিযোগ জানাতে পারেন।

 

যে আপনি ভিডিওটি কপি করেনি ভুলবশত আপনার চ্যানেলে কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইম দেওয়া হয়েছে। সবকিছু যদি ঠিক থাকে আর আপনি যদি ভিডিও কপি না করেন তাহলে এক সপ্তার ভিতর কপিরাইট স্ট্রাইক অথবা কপিরাইট ক্লেইম তুলে নেওয়া হবে। ইউটিউবে NCS বা No Copyright Sound নামে একটি চ্যানেল রয়েছে যেখানে আপনি অনেক সাউন্ড বা অডিও পাবেন সেগুলো আপনার ভিডিওতে ব্যাকগ্রাউন্ড হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন এতে কোনো কপিরাইট স্ট্রাইক খাবেন না। অথবা

 

আশা করি আজকের এই আর্টিকেলটি পড়ে আপনি ইউটিউব কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে বিস্তারিত একটি ধারণা পেয়েছেন। এখনো যদি কপিরাইট পলিসি সম্পর্কে আপনার কোন প্রশ্ন থাকে অবশ্যই আপনার প্রশ্ন নিচে কমেন্টের মাধ্যমে আমাদেরকে জানাবেন। BD Youtube Community টিম সবসময় আপনাকে সাহায্য করবে। আপনি চাইলে আমাদের ইউটিউব চ্যানেল অথবা ফেসবুক পেজ অথবা ফেসবুক গ্রুপে যুক্ত হতে পারেন।

 


© 2020 bdyoutubecommunity.com
error: Content is protected !!